Sri Sri Ramakrishna Kathamrita – Sri Sri Ramakrishna Lilaprasanga cross reference

                                       শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত ও শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ লীলাপ্রসঙ্গ : বিষয় সাদৃশ্য 
শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণকথামৃত (উদ্বোধন প্রকাশিত) শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণলীলাপ্রসঙ্গ
বিষয়  তারিখ   পরিচ্ছেদ  পৃষ্ঠা সংখ্যা  বিষয়  খন্ড  পৃষ্ঠা সংখ্যা 
             
আদ্যা শক্তি মহামায়া  ও শক্তি সাধনা ২৪শে আগস্ট ১৮৮২   তৃতীয় ৬৫ মায়া কৃপা করিয়া পথ না ছাড়িলে মানবের ঈশ্বর লাভ হয় না ১৪৩
নরেন্দ্র নিজে খোল ধরিয়াছেন ও মত্ত হইয়া ঠাকুরের সঙ্গে গাহিতেছেন ১৬ই অক্টোবর ১৮৮২ পঞ্চম  ৬৯ নরেন্দ্রের গান ৩৫
নরেন্দ্রের কত গুণ- গাইতে, বাজাতে বিদ্যায় আবার জিতেন্দ্রিয় ২২শে অক্টোবর ১৮৮২  ষষ্ঠ ৭৬ নরেন্দ্রের বহুমুখী প্রতিভা ৩৯
তোমাদের ঝগড়া-বিবাদ যেন শিব ও রামের যুদ্ধ ২৭শে অক্টোবর ১৮৮২ সপ্তম  ৯০ শিব ও রামের যুদ্ধ'  কথায় কেশব ও বিজয়ের মনোমালিন্য দূর হওয়া   ১১
ঈশ্বর লাভের লক্ষণ – সপ্তভূমি ও ব্রহ্মজ্ঞান ২৮শে অক্টোবর ১৮৮২  ষষ্ঠ  ১০২ বেদান্তের সপ্তভূমি ও প্রত্যেক ভূমিলব্ধ আধ্যাত্মিক দর্শন সম্মন্ধে ঠাকুরের কথা ৩৭
পুরাণে আছে, বীরভক্ত হনুমানের জন্য তিনি রামরূপ ধরেছিলেন। ২৮শে অক্টোবর ১৮৮২ পঞ্চম ১০১ বিশ্বাস ও নিষ্ঠা, এই বিষয়ে হনুমানের কথা  ৬৫
তোমাদের উপাসনা দেখব ১৬ই নভেম্বর ১৮৮২ দ্বিতীয় ১০৯ ব্রাহ্মসমাজে গমনাগমন ৩৮
হাজরা একটি কম নয়। যদি এখানে বড় দরগা হয়, তবে হাজরা ছোট দরগা ১লা জানুয়ারী ১৮৮৩  চতুর্থ ১৩৫ প্রতাপচন্দ্র হাজরা ৮০
নরেন্দ্র নিত্য
সিদ্ধ- জন্ম থেকেই চৈতন্য আছে। লোকশিক্ষার জন্য শরীর ধারণ
২৫শে ফেব্রুয়ারী ১৮৮৩ প্রথম ১৪০ নরেন্দ্রের স্বাভাবিক ধ্যানানুরাগ ৩৮
হরিশ বাড়ি ছেড়ে এখানে মাঝে মাঝে থাকে কিনা? ৪ঠা জুন ১৮৮৩ তৃতীয় ১৯৯ দয়া প্রকাশের স্থান উহা নহে ৯৪
ক্রীড়াচ্ছলে ঠাকুর রাখালের মাথাটি কোলে লইয়াছেন, রাখাল শুইয়া আছে ৪ঠা জুন ১৮৮৩ প্রথম ১৯৬ ঠাকুরের অদ্ভুত দর্শন ও রাখালচন্দ্রের আগমন ৩০
ঈশ্বর কোটি  অবতারাদি না হলে সমাধির  পর  ফেরে না ৫ই জুন ১৮৮৩  ষষ্ঠ  ২০৪অখন্ড অধিকারিক বা ঈশ্বরকোটি ও জীবকোটি ২৪
রাখালের বালক স্বভাব ১০ই জুন ১৮৮৩  অষ্টম ২০৯ রাখালের বালক ভাব ৩১
ত্রৈলঙ্গ স্বামী বলেছিলো, বিচারে অনেক বোধ হচ্ছে  ১০ই জুন ১৮৮৩ একাদশ ২১৪ ঠাকুর ও  শ্রীত্রৈলঙ্গ স্বামী  ১৮৭
ষড়চক্র ভেদ ভুলে মায়ার রাজ্য ছাড়িয়ে জীবাত্মা   প্রমাত্মার   সঙ্গে এক হয়ে যায় ১০ই জুন ১৮৮৩ দশম ২১২ ষটচক্রভেদ ও সমাধি ৩৪
এটি রাঘব পণ্ডিতের চিঁড়ার মহোৎসব ১৮ই জুন ১৮৮৩ প্রথম ২২৩ পানিহাটির মহোৎসবের ইতিহাস ১৩৪
পেনেটীর মহোৎসবে শ্রীরামকৃষ্ণের মহাভাব ১৮ই জুন ১৮৮৩ প্রথম ২২৩ ঠাকুরের ভাবাবেশ ও নৃত্য ১৩৭
শ্রীমণি সেনের বৈঠকখানায় শ্রীরামকৃষ্ণ ১৮ই জুন ১৮৮৩ প্রথম ২২৪ মণি সেনের বাটি ১৩৬
সংকীর্তন তরঙ্গ রাঘবমন্দিরের অভিমুখে অগ্রসর হইতেছে ১৮ই জুন ১৮৮৩ প্রথম ২২৪ রাঘব পণ্ডিতের বাটিতে যাইবার পথে ১৩৭
বিষ্ণুপুরে মৃন্ময়ী দর্শন ১৯শে আগস্ট ১৮৮৩ ত্রয়োদশ ২৫০ মৃন্ময়ী ৯১
এদিকে জিতেন্দ্রিয় বলেছে বিয়ে করবে না ২০শে আগষ্ট ১৮৮৩  সপ্তদশ ২৫৬ নরেন্দ্রের বিবাহ করিতে অসম্মতি ৩৪
কৃষ্ণ কিশরের বিশ্বাস  ৯ই অক্টোবর ১৮৮৩  দ্বাবিংশ ২৬৪ রামভক্ত কৃষ্ণকিশোর ৫৪
বিষ্ণুঘরের গয়্না চুরি ও সেজোবাবু  ২৮শে নভেম্বর ১৮৮৩  অষ্টম ৩০৭ ঐশ্বর্য  জ্ঞানে ঈশ্বরকে    আপনার করা যায় না।
কেশবের    জন্য শ্রীরামকৃষ্ণের ক্রন্দন ও সিদ্ধেশ্বরীকে ডাব-চিনি মানত ২৮শে নভেম্বর ১৮৮৩   নবম ৩০৮ ঠাকুর কেশবকে  কতদূর  আপনার জ্ঞান করিতেন ১০
ভক্তিযোগ – সমাধি তত্ত্ব ও মহাপ্রভুর অবস্থা ৯ই ডিসেম্বর ১৮৮৩ প্রথম পরিচ্ছেদ  ৩১৭ নির্বিকল্প সমাধি ১৪
মথুর সঙ্গে শ্রী বৃন্দাবন দর্শন ১৮৬৮ শ্রীমুখ কথিত চরিতামৃত ২৪শে ডিসেম্বর ১৮৮৩  তৃতীয় ৩৫৪ শ্রীবৃন্দাবনে নিধুবনাদি স্থান দর্শন ১৮৮
নরেন্দ্রর বাপ মারা গেছে বাড়িতে বড় কষ্ট ২রা মার্চ ১৮৮৪ পঞ্চদশ ৩৯৫ বিশ্বনাথের মৃত্যু ৪৮
মহিমাচরণ নারদ পঞ্চরাত্র হইতে সেই শ্লোকটি বলিতেছিল ২৩শে মার্চ ১৮৮৪ উনবিংশ ৪০৮ মহিমবাবুর ধর্ম সাধনা ১৮৬
উর্ধরেতা, ধৈর্য্যরেতা ও ঈশ্বরলাভ  ২৩শে মার্চ ১৮৮৪  উনাবিংশ ৪০৯ অখণ্ড ব্রক্ষ্মচর্য পালনে ঠাকুরের নরেন্দ্রকে উপদেশ ১১৪
ঈশ্বরের সেবা / তাঁর সংসারের সেবা / তুই মার জন্য চাকরী স্বীকার করেছিস। ১৫ই জুন ১৮৮৪ দ্বিতীয় ৪৪৯ চাকরী করা সম্বন্ধে ঠাকুর ৫৩
তাঁর গুণ কোটি বৎসর বিচার করলেও কিছু জানতে পারবেনা ২৫শে জুন ১৮৮৪  প্রথম ৪৬৫ ঈশ্বরের স্বরুপের অন্ত নির্দেশ করা যায়্না
গৃহস্থ ধর্মের সুখ্যাতি আছে- শ্রী রামকৃষ্ণ- হাঁ কিন্তু বড় কঠিন ২৫শে জুন ১৮৮৪ প্রথম ৪৬৬ সংসারে থাকিয়া ঈশ্বর সাধন সম্বন্ধে ঠাকুরের উপদেশ ২৪
মাইকেল মধুসূদন  ৩ জুলাই ১৮৮৪ তৃতীয় পরিচ্ছেদ  ৪৯৮ ঠাকুর ও মাইকেল সংবাদ ৪৮
আচ্ছা হরিশ, লাটু কেবল ধ্যান করেঃ- উগুনো কি? ৩রা আগস্ট ১৮৮৪  তৃতীয় ৫১০ হরিশের কথা ৯৪
পূর্ব কথা- ফুলুই শ্যামবাজার দশর্ন ১৮৮০  ১৯শে সেপ্টেম্বর ১৮৮৪ দ্বাদশ পরিচ্ছেদ  ৫৫০ ঠাকুরের ফুলুই শ্যামবাজারে গমন ও অপূর্ব কীর্তনান্দ – এ ঘটনার সময় নিরুপন  ২৩২ পরিশিষ্ঠ  
ঈশ্বর লাভের বিঘ্ন অষ্টসিদ্ধি  ২১শে
সেপ্টেম্বর ১৮৮৪
প্রথম ৫৬৪ সিদ্ধাই যোগ ভ্রষ্টকারী ১২৮
হাতি মারলেন, আর বাঁচালেন, আপনার কী হল, ২১শে
সেপ্টেম্বর ১৮৮৪
দ্বিতীয় ৫৬৫ ঠাকুরের হাতী  মরা বাঁচার  গল্প  ১৩১
ধ্যান করতে করতে দেখলুম রমনী খানকী!  বললুম, মা তুই  এই রূপেও আছিস! ১লা অক্টোবর ১৮৮৪ তৃতীয়  ৬০২ ভিন্ন ভিন্ন খোলগুলোর ভেতর থেকে যা উঁকি মারছে! রমণী বেশ্যাও  মা হয়েছে। ৮৬
ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ ও দেহের লক্ষণ ৫ই অক্টোবর ১৮৮৪ চতুর্থ ৬২৮ শারীরিক  লক্ষন সমূহ দর্শনে অন্তরের সংস্কার নির্ণয় ৮৬
দেখতে গেছিলুম তখন ওধারে একটি বাগানে সে ছিল। / বেদান্তবাগীশ, দয়ানন্দ সরস্বতী ১১ই অক্টোবর ১৮৮৪ অষ্টম  ৬৩৮ দয়ানন্দের সম্বন্ধে ঠাকুর  ৫৩
রাগভক্তি  খানদানি চাষ / ফসল হোক নাই হোক আবার চাষ করবেই ৯ই নভেম্বের ১৮৮৪  একাদশ ৭০২ সাধনে লাগিয়া থাকা আবশ্যক ১০
চৈতন্য দেব মেড়গাঁর কাছ দিয়ে যাচ্ছিলেন। শুনলাম এ গাঁয়ের মাটিতে খোল তৈয়ার হয়-  ভাবেবিহ্বল  ৯ই নভেম্বের ১৮৮৪  দশম ৭০০- ৭০১ এই মাটিতে  খোল হয়' বলিয়াই শ্রী চৈতন্যের ভাব  ৬৪
দু একটি ছেলে হলে স্ত্রীর সঙ্গে ভাই-ভগ্নীর মতো থাকতে হয়। ৬ই ডিসেম্বর ১৮৮৪  তৃতীয় ১১১৯ বিবাহিত জীবনে ব্রহ্মচর্য পালন করিবার প্রথা ৭৬
রাম, সীতা লক্ষণ যাচ্ছেন আগে রাম মাঝে সীতা ১৪ই ডিসেম্বর ১৮৮৪  তৃতীয় ৭১৬ রামসীতা ও লক্ষণের বনে পর্যটনের কথা ১৪৩
ঈশ্বরের জন্য গঙ্গায় ঝাঁপ দিয়ে মরেছিস একথা বরং শুনব তবু কারুর দাসত্ব করিস, চাকরি করিস, একথা যেন না শুনি। ১লা মার্চ ১৮৮৫ দ্বিতীয় ৭৫১ রাখালকে শাসন ৩১
এখন বাড়িতে থাকে, বাড়িতে পরিবার আছে। ৭ই মার্চ ১৮৮৫  পঞ্চম ৭৫৬ রাখালের বালক ভাবের হানি ৩১
যেইরাম, যেইকৃষ্ণ, ইদানীং সেই রামকৃষ্ণ ৭ই মার্চ ১৮৮৫  দশম ১০৯৬ যে রাম যে কৃষ্ণ সেই ইদানীং রামকৃষ্ণ ৭৩
রাখাল পরিবার পরিবার করে বলে, আমার স্ত্রীর কি হবে। ৭ই মার্চ ১৮৮৫  পঞ্চম ৭৫৮ রাখালের পত্নী ৩১
বাহিরে ভাব তার তো হবে না। তার আধার আলাদা! আর তার সব লক্ষণ জানা ১১ই মার্চ ১৮৮৫ একাদশ ৭৮৫ পূর্ণের আগমনে ঠাকুরের প্রীতি ও তাহার উচ্চাধিকার সম্বন্ধে কথা। ৯৮
ঠাকুর নিজের কাছে তাহাকে বসাইয়া আস্তে আস্তে কথা কহিতেছেন। ১২ই এপ্রিল ১৮৮৫  চতুর্থ ৮০৩ পূর্ণের সহিত ঠাকুরের সপ্রেম আচরণ ৯৮
পূর্ণকে আর একবার দেখলে আমার ব্যাকুলতা একটু কম পড়বে। কি চতুর আমার উপর খুব টান। ১৩ই জুন ১৮৮৫ প্রথম ৮৪২ ঠাকুরের পূর্ণকে দেখিবার আগ্রহ ৯৮
শ্রী রামকৃষ্ণ ও সত্য কথা – তাঁহার বাণী ও ভক্তের অবস্থা ১৩ই জুন ১৮৮৫  প্রথম ৮৩৮/ ৩৯ ঠাকুরের সত্য নিষ্ঠা  ২৮
নরেন্দ্রকে দেখিয়া ঠাকুরের স্নেহ উথলিয়া পড়িল  ১৩ই জুন ১৮৮৫ চতুর্থ ৮৫৪ নরেন্দ্রর প্রতি ঠাকুরের ভালোবাসা সাংসারিক ভাবের নহে ৬১
পূর্ণ জ্ঞানী ও পূর্ণ মূর্খ দুইজনেরই বাহিরের লক্ষণ একরকম। শুচি অশুচির বিচার নাই। ১৩ই জুন ১৮৮৫  চতুর্থ ৮৫১ পূর্ণ জ্ঞানীর আর একটি লক্ষণ – পিশাচবৎ। খাওয়া দাওয়ার বিচার নাই – পরমহংসদের বালক, পিশাচ বা উন্মাদের মতো অপরে দেখে। ২৮
কালীধামে শিব   ও সোনার   অন্নপূর্নাদর্শন ১৪ই জুলাই ১৮৮৫  চতুর্থ ৮৬২ কাশীতে প্রত্যাগমন ও  স্থিতি /  কেদারঘাটে অবস্থান ও  বিশ্বনাথ দর্শন ১৮৭-১৮৮
রামলালাকে নাওয়াতাম, খাওয়াতাম, শোয়াতাম – সঙ্গে সঙ্গে নিয়ে বেড়াতাম, - রামলালার জন্য বসে বসে কাঁদতাম। ১৫ই জুলাই ১৮৮৫ সপ্তম  ৮৬৯ রামলালা ঠাকুরের কথা ২৯
গোপালের মার প্রকৃতিভাব ও রূপদর্শন ১৩ই জুলাই ১৮৮৫ প্রথম ৮৫৬ গোপালের মার বিশ্বরূপ দর্শন ১৫২
নরেন্দ্রের খুব উঁচু ঘর – নিরাকারের ঘর। পুরুষের সত্তা  ১৫ই জুলাই ১৮৮৫  সপ্তম ৮৬৯ নরেন্দ্রের মহত্ত্ব সম্বন্ধে ঠাকুরের বাণী ৭৫
এর ভিতরে কে আছেন আমার বাপেরা জানত। বাপ গয়াতে স্বপ্নে দেখেছিলেন – রঘুবীর বলছেন    ‘আমি তোমার ছেলে হব’। ৯ই অগাস্ট ১৮৮৫ তৃতীয় ৮৯৬ সমাধিস্থ হইয়া শরীরত্যাগ হইবে ভাবিয়া ঠাকুরের গয়া ধামে যাইতে অস্বীকার ৬৯
বটতলা থেকে বকুলতলা পর্যন্ত চৈতন্যদেবের সংকীর্তনের দল দেখানো ৯ই আগষ্ট ১৮৮৫ তৃতীয় পরিচ্ছেদ  ৮৯৫ ঠাকুরের
সংকীর্তনে শ্রী শ্রী গৌরাঙ্গদেবকে দর্শন। 
২৩২ পরিশিষ্ঠ  
শ্রীযুক্ত রাখাল বৃন্দাবন হইতে আসিয়া কিছুদিন বাড়িতে ছিলেন। ৯ই আগস্ট ১৮৮৫   প্রথম ৮৯০ রাখালের শ্রীবৃন্দাবন গমন ৩২
বায়ুকোণে আর একবার (আমার) দেহ হবে ৯ই অগাস্ট ১৮৮৫ দ্বিতীয় ৮৯৩ তাঁহার মুক্তি নাই ২১৪
স্ত্রী সহিত ঠাকুরের সম্বন্ধ ৯ই অগাস্ট ১৮৮৫ তৃতীয় ৮৯৬ স্ত্রী সহিত ঠাকুরের সম্বন্ধ রহিত অদৃষ্টপূর্ব প্রেম সম্বন্ধ - স্ত্রী সম্ভোগ স্বপ্নেও হলো না ৭৬
যিনি ইষ্ট গুরু রুপে হয়ে আসেন ১লা অক্টোবর ১৮৮৫  দশম ৯০৯ গুরু শেষে ইষ্টে লয় হন ৬৭
তেঁতুল তলায় আমার গাড়ি গেছিল তাই আমার অম্বল হয়েছে ২২শে অক্টোবর ১৮৮৫ অষ্টম ৯৩৫ একটু অত্যাচার অনিয়মে কতটা
অপকার হয় তাহার দৃষ্টান্ত
১৬৪
তিনি সাকার, তিনি নিরাকার ২২শে  অক্টোবর ১৮৮৫  সপ্তম ৯২৯ ঈশ্বর সাকার নিরাকার দুই-ই যেমন জল আর বরফ ১৭৬
তোমরা জাননা যে আমার কত টাকা রোজ লোকসান হচ্ছে - দুই তিন জায়গায় রোজ যেতে সময় হয় না ২৫শে  অক্টোবর ১৮৮৫  ষোড়শ ৯৫১ ডাক্তারের ঠাকুরের প্রতি শ্রদ্ধার বৃদ্ধি ১৬৫
মহাশয় আপনি ডাক্তারের অহংকার বাড়াবার জন্য রোগ করেছেন ২৫শে  অক্টোবর ১৮৮৫  পঞ্চদশ ৯৫০ শ্যামপুকুরে মহিমাচরণ ১৮৬
এখানেই পূর্ণ ষোলআনা দেখছি ২৫শে অক্টোবর ১৮৮৫ সপ্তদশ ৯৫২ এমনটি আর কোথাও দেখলাম না, এখানে ভাবের পূর্ণ প্রকাশ দেখছি। শ্রী যুক্ত বিজয়- কৃষ্ণ গোস্বামীর দর্শন ৫৪ ১১০
ভক্ত সঙ্গে শুধু পাণ্ডিত্যে কি আছে? ২৬শে  অক্টোবর ১৮৮৫  দ্বাবিংশ ৯৬২-৬৩ পাণ্ডিত্যের অহংকার ১৬৩
তিনি বলেন, আপনি গম্ভীরাত্মা ২৬শে  অক্টোবর ১৮৮৫  একবিংশ ৯৬১ ভিতরে মাল আছে ১৬৩
তাঁর অসুখের তদারক তোমরা কিরূপ কর ২৬শে  অক্টোবর ১৮৮৫  একবিংশ ৯৬২ গৃহী ভক্তগণের ঠাকুরের জন্য স্বার্থত্যাগের কথা ১৫৯
এখানকার কথা ভাবছে, ক্রমে শ্রদ্ধা হচ্ছে। ৩০শে অক্টোবর ১৮৮৫  সপ্তত্রিংশ ৯৯৫ ঠাকুরের ডাক্তারকে ধর্মপথে অগ্রসর করিয়া দিবার চেষ্টা ১৬৩
পরমহংসদেবের কাছে বলরাম যাতায়াত করেন। বিশেষতঃ মেয়েদের লইয়া যান শুনিয়া বিরক্ত হইয়াছেন ৩১শে অক্টোবর ১৮৮৫ চত্বারিংশ ৯৯৮ ঠাকুরকে শ্রদ্ধাভক্তি করায় বলরামের আত্মীয়বর্গের অপ্রসন্নতা ১৬৯
আমি মনে কল্লাম, একদিন যাই গিয়ে তোমাদের সঙ্গে দেখা করি। ৩১শে অক্টোবর ১৮৮৫ চত্বারিংশ ৯৯৮ বলরামের প্রতি কৃপায় ঠাকুরের হরিবল্লভকে দেখিবার সঙ্কল্প ১৭২
শ্রী রামকৃষ্ণ - তাঁহাতে খ্রীষ্টের আবির্ভাব ৩১শে
অক্টোবর
১৮৮৫
একচত্ববিরংশ ১০০০ খ্রীষ্টান ধর্ম যাজক প্রভুদয়াল মিশ্র ১৮৭
জগন্মাতা কালী পূজা ৬ই নভেম্বর ১৮৮৫  চতুশ্চত্বাবিংশ ১০০৭ কালীপূজা দিবসে ঠাকুরের তদ্ভুত ভাবাবেশের বিবরণ ১৬৭
আজ কালী পূজা, কিছু পূজার আয়োজন করা ভাল। ওদের একবার বলে এস। ৬ই নভেম্বর ১৮৮৫  ত্রয়শ্চত্বারিংশ ১০০৪ পূজার আয়োজন ১৬৭
গিরিশ ঠাকুরের পাদপদ্মে মালা দিলেন ৬ই নভেম্বর ১৮৮৫  চতুশ্চত্বাবিংশ ১০০৭ গিরিশচন্দ্রের মীমাংসা ও ঠাকুরের পাদপদ্মে পুষ্পাঞ্জলি প্রদান – ঠাকুরের ভাবাবেশ ১৬৮
বিজয় এইরূপ অর্থাৎ ঠাকুরের মূর্তি দর্শন করেছে। একি বলে দেখি? বলে, তোমায় যেমন ছোঁয়া / ওই রূপ ছুঁয়েছি। ২৩শে ডিসেম্বর ১৮৮৫  দ্বিতীয় ১০১৩ অঙ্গপ্রত্যঙ্গাদি বহুক্ষণ ধরিয়া স্বহস্তে টিপিয়া টিপিয়া দেখিয়া যাচাইয়া লন। ১১০
শ্রীরামকৃষ্ণ ভক্ত সঙ্গে কাশীপুরে বাস করিতেছেন / কাশীপুর বাগানে ভক্ত সঙ্গে ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ ২৫শে ডিসেম্বর ১৮৮৫  প্রথম ১০১০ ঠাকুরের ব্যাধির বৃদ্ধি ও ভক্তগণের তাঁহাকে কাশীপুর উদ্যানে লইয়া যাওয়া ১৮৭
পিতার পরলোক প্রাপ্তির পর তাঁহার মা ও ভাইরা অতিকষ্টে আছেন। ৫ই জানুয়ারি ১৮৮৬  পঞ্চম ১০১৮ নরেন্দ্রের সাংসারিক অবস্থার   পরিবর্তন ১১৭
ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণের পাঁচপ্রকার সমাধি। ৯ই এপ্রিল ১৮৮৬ দশম ১০৩১ সমাধি পথে কুন্ডলিনীর পাঁচ প্রকারের গতি ৩৬
আগে আগে অপর পাঁচ জন ওঁর কাছে এলে আমার হিংসে হতো। তারপর উনি কৃপা করে আমায় জানিয়ে দিয়েছেন- যদ্গুরু শ্রীজগৎ গুরু! ১৩ই এপ্রিল ১৮৮৬  দ্বাদশ ১০৩৪
রাখালের মনে হিংসা ও   ঠাকুরের ভয়
৩১
শ্রীরামকৃষ্ণ কাশীপুর উদ্যানে ১৩ই এপ্রিল ১৮৮৬  ত্রয়োদশ ১০৩৬ কাশীপুর উদ্যান বাটি ১৮৯
পরিশিষ্ট
আগে আগে অপর পাঁচজন ওঁর কাছে এলে আমার হিংসা হতো। ১৩ই এপ্রিল ১৮৮৬  দ্বাদশ ১০৩৪ রাখালের মনে হিংসা ও ঠাকুরের ভয়। ৩১
অসুস্থতানিবন্ধন ঠাকুরের প্রায় নিদ্রা নাই ১৬ই এপ্রিল ১৮৮৬  চতুর্দশ ১০৩৮ তাঁহার দীর্ঘ বলিষ্ঠ শরীরকে জীর্ণ ভগ্ন করিয়া শুষ্ক কঙ্কালে পরিণত করিয়াছিল ১৯১
সেদিন পরমহংস মহাশয়ের সঙ্গেই খুব তর্ক করলাম ২১শে এপ্রিল ১৮৮৬ অষ্টাদশ ১০৪৭ নরেন্দ্রের তর্কশক্তি ৪১
বাগানটি ভাড়া দিতে হয় প্রায় ৬০ - ৬৫ টাকা ২১শে এপ্রিল ১৮৮৬  উনবিংশ ১০৫০ ঠাকুরের বাসের জন্য মাসিক ৮০ টাকা হার নিরূপণ করিয়া প্রথম ছয় মাসের এবং পরে আরও তিনমাসের অঙ্গীকার পত্র প্রদানে ভাড়া লইয়াছিল ১৯০
পরিশিষ্ট
রাখাল সন্তান – পরিবার ত্যাগ করিয়া আসিয়াছেন। অন্তরে তীব্র বৈরাগ্য। কেবল ভাবছেন, একাকী নর্মদা তীরে কি অন্য স্থানে চলিয়া যাই। ৭ই মে ১৮৮৭  চতুর্থ ১১৫৩ রাখালের ভবিষ্যৎ জীবন ৩২
তোতাপুরী (গোস্বামীর) এগার মাস থাকিয়া ঠাকুরকে বেদান্ত শুনাইলেন ১৮৬৬ (সম্ভবত) উপক্রমণিকা  তোতাপুরী গোস্বামীর কথা ১৩৫
Ramakrishna Mission Vivekananda University
Belur Math, Howrah, India
No part of the site should be reproduced in any form or by any means, electronically or otherwise, without prior written permission.
Powered by Softsignindia